সিরাপ সিনকারা (CINKARA) বিশ্ব বিখ্যাত ফ্যামিলি টনিক ।।

সিনকারা একটি আদর্শ হারবাল টনিক, যা দেহের কোষ-কলায় পৌছার ক্ষমতা (CINKARA) বৈজনানিকভাবে প্রমাণিত। এটা সব ঋতুতে পরিবারের সবার ব্যবহার যোগ্য। শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় প্রাকৃতিক খনিজ, ট্রেস উপাদান ও প্রাকৃতিক ভিটামিন পর্যাপ্ত পরিমাণ সিনকারা থেকে পাওয়া যায়। এতে রয়েছে বিভিন্ন ভিটামিন সমৃদ্ধ গাছ-গাছড়ার নির্যাস। যা  শত শত বছর ধরে শক্তির যাগান, উদ্দীপনা এবং স্নায়ু ও পেশীর বল বর্ধক  হিসেবে ব্যবহিত হয়ে আসছে। ওষধি গাছ-গাছড়ার গুনাগুন সম্পর্কে মানব জাতির বহু শতাব্দীর লব্ধজ্ঞান ও অভিজ্ঞতা এবং অত্যাধুনিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সমন্বয়ে সিনকারার প্রস্তুত প্রনালী উদ্ভাবন করা হয়েছে। সিনকারায় গোলাপ জল মিশ্রনের ফ্লে উপাদানগুলো দ্রুত রক্তের সাথে মিশার ক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়ে মানব দেহের ভিভিন্ন অঙ্গের কোষ-কলায় পৌছার পূর্ণ ক্ষমতা অর্জন করেছে।CINKARA

বৈজ্ঞানিক ভাবে প্রমাণিত হয়েছে যে, কার্যকরীতা ও দেহের সকল কোষ-কলায় পৌছার ক্ষমতার দিক থেকে ৩০ মিলি সিনকারা ২০০ মিগ্রা ভিটামিন-সি এর সমান।

সিনকারা এক অদ্বিতীয় ফর্মুলা যাতে রয়েছে পৃথিবীর সমান টনিকের স্মমিলিত গুণাবলী। এটি ঐ সব টনিকের আনাকাঙ্খিত ক্ষতিকর দিকগুলো থেকে মুক্ত।

সিনকারা ডিজিটাল ক্যান্সেলেশন টেস্ট এবং গানিতিক পরীক্ষার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য  প্রভাব বিস্তার করে এবং মানুষের জ্ঞানেন্দ্রিয়গুলো আরো সতেজ ও সক্রিয় করে তোলে। ফলে গানিতিক অংক করার ও আধুনিক জ্ঞান বিজ্ঞানের তথ্য দ্রুত অনুধাবন করতে পারে। এটা পরীক্ষিত সিনকারা সেবনে তাদের আরো গণনার ক্ষমতা দৃদ্ধি পায়। এতে প্রমাণিত হয় সিনকারা শিশুর শিক্ষন ও স্মৃতি শক্তি বৃদ্ধি করে।

উদাহরণে বিজ্ঞানীরা এ মত প্রেষণ করেন যে, সিনকারা মানব দেহের সাইকোমটর ও মানসিক শক্তি বৃদ্ধি করে এবং কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের কার্যক্রম উন্নত ও সুসংহত করে। সিনকারা বিদ্যমান মূল্যবান ঔষধি উদ্ভিদসমূহ দেহের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হৃৎপিণ্ড, লিভার ও কিডনীকে শক্তিশালী করে।

মস্তিষ্কের স্নায়ুকোষ তৈরিতে সহায়ক এনজাইম গঠনে জিংক একটি আবশ্যক উপাদান। মানুষের মস্তিস্কে কোষের গঠন ভ্রণ থেকে শুরু করে শৈশবকাল পর্যন্ত চলতে থাকে বিধায় গর্ভকালীন সময় হতে জিংকের প্রয়োজন পড়ে। সিনকারাতে প্রচুর মাত্রায় প্রাকৃতিক জিংক রয়েছে। সিনকারার ব্যবহিত বড় এলাচ, ছোট এলাচ, দারুচিনি, ধনিয়া, লবঙ্গ, গোলাপ, জটামাংসী ইত্যাদি ঔষুধি উপাদান।

সিনকারায় পর্যাপ্ত জিংক এর উপস্থিতি প্রমান করে যে, এটি মস্তিষ্কের উন্নতি ও ধারন ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

মানুসিকভাবে অবিকশিত শিশুদের বুদ্ধিবৃত্তিক কার্যাবলীর উপর জিংক সমৃদ্ধ হারবাল বলকারক হিসেবে সিনকারার কার্যকারিতা। সিনকারা অল্প মেধা সম্পন্ন শিশুদের বুদ্ধি বৃত্তিক কার্যবলীর উন্নতি ঘটায়। তারা স্বল্প মেধা সম্পন্ন ৭ থেকে ১৪ বছর বয়সী ৩৪ জন শিশুর উপর পরিচালিত এক গবেষণা জরিপে এ ফল পেয়েছেন। এর মধ্যে ৬০ শতাংশ ছিল ছেলে এবং ৪০ শতাংশ ছিল মেয়ে। ক্রমাগত দীর্ঘ ৮ মাসের এই সমীক্ষার ফল ইন্ডিয়ান জার্নাল অব ফার্মাকোলজীতে প্রকাশ করা হয়।

এই সংক্রান্ত আরও খবর...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *